ক্যালসিয়াম ঘাটতি প্রতিরোধের উপায়

ক্যালসিয়াম ঘাটতি প্রতিরোধের উপায়

রোগ ও ঔষধ

আমরা প্রায় সময়ই ক্যালসিয়ামের অভাবে থাকি। বাংলাদেশের মত গরিব দেশে এটা বেশি দেখা যায়। শহরের তুলনায় গ্রামে আমরা ক্যালসিয়ামের অভাব বেশি লক্ষ করে থাকি। আমরা আজ ক্যালসিয়াম ঘাটতি প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে আলোচনা করবো।

                                 ক্যালবো ৫০০ – Calbo – 500

Calbo - 500
Calbo – 500

উপাদন:

ক্যালসিয়াম ৫০০ মি. গ্রা. ট্যাবলেট।

নির্দেশনা:

ক্যালসিয়াম ঘাটতি প্রতিরোধে ও ঘাটতিজনিত চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।

মাত্রা ও ব্যবহার বিধি:

৫০০-১৫০০ মি. গ্রা. ক্যালসিয়াম প্রতিদিন। গভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে নির্দেশিত মাত্রা ১২০০-১৫০০ মি. গ্রা. ক্যালসিয়াম।

সতর্কতা ও যেসব ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে না:

হাইপারক্যালসেমিয়, হাইপারপ্যারাথাইরয়েডিজম হাইপারক্যালসিইউরিয়া, নেফ্রলিথিয়াসিস, জলিনজারইলিসন সিনড্রম এবং ডিগোক্সিন চিকিৎসা (সেরাম ক্যালসিয়ামের মাত্র সাবধানতার সহিত পর্যবেক্ষন করা হয়)

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:

কোষ্ঠকাঠিন্য, হাইপারক্যালসেমিয়। অন্য ঔষুধের  সাথে প্রতিক্রিয়া: ডিগোক্সিন, টেট্টাসাইক্লিন, ফ্র্রসেমাইড, পেন্টাগ্যাস্ট্রিন এমাইনোফাইলিন, ইরাইথ্রোমাইসিন, নাইট্রোফিউরান্টইন, আয়রন।

গর্ভাবস্থা ও স্তন্যদানকালে ব্যবহার:

ক্যালসিয়াম পরিপূরক ও এন্টাসিড হিসাবে ক্যালসিয়াম সমন্বিত ঔষুধসমূহ গর্ভাবস্থায় ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। স্তন্যদানকারী মায়েদের ক্ষেত্রেও ক্যালসিয়াম কার্বনেট ব্যবহার করা যাবে।

সরবরাহ:

ক্যালবো ৫০০ ট্যাবলেট : ১০*১০ টি।

                                      ক্যালবো – সি Calbo – C

Calbo - C
Calbo – C

উপাদান:

ক্যালসিয়াম ল্যাকটেট গ্লূকোনেট ১০০০ মি. গ্রা. ক্যালসিয়াম কার্বনেট ৩২৭ মি. গ্রা. এবং কস্করবিক এসিড (ভিটামিন-সি) ৫০০ মি. গ্রা./ এফারভেসেন্ট ট্যাবলেট।

নির্দেশনা:

যে সমস্ত ক্ষেত্রে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন সি এর চাহিদা বৃদ্ধি পায় যেমন: গর্ভাবস্থা, স্তন্যদানকালে, দ্রুত বৃদ্ধির সময়, বৃদ্ধ বয়স, সংক্রামক ব্যাধি এবং রোগমুক্তির পর ইত্যাদি। এ ছাড়া ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন সি এর ঘাটতিজনিত চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।

মাত্রা ও ব্যবহার বিধি:

প্রাপ্ত বয়স্ক ও স্কুলগামী শিশু: এদির ক্ষেত্রে দিনে ১ টি এফারভেসেন্ট (বুদবুদ্বায়িত) ট্যাবলেট।

৩-৭ বছর বয়সী শিশু: ১/২ ইফারভেসেন্ট (বুদবুদ্বায়িত) ট্যাবলেট প্রতিদিন। একটি ট্যাবলেট অর্ধেক গ্লাস পানিতে গুলিয়ে পান করুন।

সতর্কতা ও যেসব ক্ষেত্রে ব্যবহার কর যাবে না:

হাইপারক্যালসিয়াম, হাইপারক্যালসিইউরিয়া, বৃক্কের তীব্র অকার্যকারিত, হাইপারক্যালসিইউরিয়া, গ্লুকোজ-৬-ফসফেট ডিহাইড্রোজিনেজ ঘাটতি, অয়রণ ওভারলোড, পরিপাকতন্ত্রের অস্বাচ্ছন্দ্যতা।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:

পরিপাকতন্ত্রের অস্বাচ্ছন্দ্যতা।

অন্য ঔষুধের সাথে প্রতিক্রিয়া:

ডিগোক্সিন, টেট্টাসাইক্লিন, ফ্রুসেমাইড, পেন্টাগ্যাস্ট্রিন এমাইনোফাইলিন, ইরাইথ্রোমাইসিন, আয়রণ।

গর্ভবস্থায় ও স্তন্যদানকালে ব্যবহার:

ভিটামিন-সি গর্ভাবস্থায় ও  স্তন্যদানকালে নিরাপদে গ্রহন করা য়ায়।

সরবরাহ:

ক্যালবো-সি এফারভেসেন্ট ট্যাবলেট : ১*১০ টি।

                                     ক্যালবো – ডি

Calbo - D
Calbo – D

উপাদান:

ক্যালসিয়াম ৫০০ মি. গ্রা. এবং ভিটামিন ডি৩ ২০০ আইইউ/ট্যাবলেট।

নির্দেশনা:

অস্থি ও অস্থি মজ্জার বিভিন্ন জটিলতায়, দাঁতের সুগঠনে এবং মহিলাদের গর্ভকালীন ও স্তন্যদানকালীন সময়, বিভিন্ন প্রয়োজনে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি ব্যবহৃত হয়।

মাত্রা ও ব্যবহার বিধি:

১ টি ট্যাবলেট দিনে ২ বার। সকালে এবং রাতে অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেব্য।

সতর্কতা ও যেসব ক্ষেত্রে ব্যবহার কর যাবে না:

অতিসংবেদনশীলতা, হাইপারক্যালসেমিয়া ও হাইপার প্যারাথাইরয়েডিজম, হাইপারক্যালসিইউরিয়া এবং নেফ্রলিথিয়াসিস, মারাত্মক ধরনের বৃক্কের অকার্যকারিতা।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:

এলার্জিক রিএ্যাকশন, অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, বমি, বমি বমি ভাব, ক্ষুধামন্দা, ঝিমুনি ও মুখ শুকিয়ে যাওয়া।

অন্য ঔষুধের সাথে প্রতিক্রিয়া:

ডিগোক্সিন, এন্টাসিড, অন্যান্য ক্যালসিয়াম সালফেট, টেট্টাসাইক্লিন, ডক্সিসাইক্লিন।

গর্ভাবস্থা ও স্তন্যদানকালে ব্যবহার:

চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবহার করা উচিত।

সরবরাহ:

ক্যালবো – ডি ট্যাবলেট : ১৫ টি।

ক্যালবো – ডি ট্যাবলেট : ৩০ টি।

আমরা বিভিন্ন সময় অসুখে আক্রান্ত হয়ে থাকি। কিন্তু সঠিক চিকিৎসার কারনে আমরা আরও নানা ধরনের সমস্যায় পরে থাকি। যদি সঠিকসময় সঠিকভাবে ঔষধ সেবন করে থাকি তাহলে অসুখ থেকে আমরা মুক্তি পেতে পারি।

আপনার আমাদের সাথেই থাকুন আমারা সবসময় আপনাদের সুবিদার্থে তথ্যবহুল নানা ধরনের পোস্ট পাবলিশ করে থাকি। আপনাদের যে কোন ধরনের সমস্যা আমাদের কে জানাতে পারেন। আমরা চেষ্টা করবো আপনার প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে। আজকে এখানেই শেষ করছি ক্যালসিয়াম ঘাটতি প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা।

সকলে ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

গ্যাসটিকের সমস্যায় করনীয়

এলার্জিক সমস্যার সমাধান

জ্বর ও সাধারন ব্যথায় করনীয়

ত্বকের ঘা হলে যা করতে হবে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *